Breaking

IPL 2020 LIVE SCORE

Friday, October 16, 2020

সরকারি শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশনের বিরুদ্ধে সেন্ট্রাল এজেন্সি দিয়ে এবার তদন্ত শুরু


সরকারি শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশনের বিরুদ্ধে সেন্ট্রাল এজেন্সি দিয়ে এবার তদন্ত শুরু


পূর্ব মেদিনীপুর,  সুজিত মণ্ডলঃ 


গৃহ শিক্ষকরা দীর্ঘ দিন রাজ্য প্রশাসনের কাছে স্কুল শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশনের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে আসছিল।পশ্চিম বঙ্গের প্রায় প্রতিটি জেলাতে DM,DI,BDO,MLA এমন কি রাজ্যপালের কাছে গৃহ শিক্ষকরা অভিযোগ জানিয়েছে ।এছাড়াও বর্তমান শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছে এই ব্যাপারে স্মারক লিপি জমা দিয়েছে। তা স্বত্বেও কোনো ভাবেই স্কুল শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশন পড়ানো বন্ধ করা যাচ্ছে না।মূলত পশ্চিম বঙ্গ গৃহ শিক্ষক কল্যাণ সমিতি তাদের পেশার স্বীকৃতির দাবিতে এবং স্কুল শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশন পড়ানো র বিরুদ্ধে রাজ্য জুড়ে আন্দোলন করে আসছে।এবার সেই অভিযোগের ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় সংস্থা National Commission for Protection of Child Right (NCPCR)। পূর্ণাংগ তদন্ত করে রিপোর্ট চেয়ে পাঠালো বীরভূম জেলা শাসক মৌমিতা গোদারা বসুর কাছে।



বীরভূম জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে এই রূপ একটি চিঠি এসেছে NCPCR এর কাছ থেকে।অভিযোগকারী জেলার 247 জন শিক্ষকের বিরুদ্ধে ভারতে রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কবিন্দ,সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচার পতি শারদ অরবিন্দ ববদে,কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচার পতি,NCPCR,অন্টি করাপশন কমিশন অফ ইন্ডিয়া,ইনকাম ট্যাক্স অফিস নিউ দিল্লি, ডিপার্টমেন্ট অফ হায়ার এডুকেশন নিউ দিল্লি সহ একাধিক জায়গায় অভিযোগ করেন।NCPCR এর সিনিয়র কনসালট্যান্ট Raman K Gaur বীরভূম জেলা শাসকের কাছে 15 দিনের মধ্যে এই অভিযোগের তদন্ত করে রিপোর্ট জমা দিতে বলেছেন।সেই অনুযায়ী জেলার ডি আই জেলার প্রতিটি স্কুলকে 5 দিনের মধ্যে রিপোর্ট জমা দিতে বলেছেন।এর পরেও কোন সরকারি শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রাইভেট পড়ানোর অভিযোগ জমা পড়লে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে।



এদিকে এই বিষয়টি নিয়ে পশ্চিম বঙ্গ গৃহ শিক্ষক কল্যাণ সমিতির রাজ্য সভাপতি স্বপন সরকার হাইকোর্টে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং এ ব্যাপারে পশ্চিম বঙ্গের বিভিন্ন জেলার বহু শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রাইভেট পড়ানোর প্রমাণ সহ একাধিক অভিযোগ জমা পড়েছে।আশা করা হচ্ছে এই কেন্দ্রীয় সংস্থা NCPCR প্রতিটি জেলা শাসকের এই অভিযোগের তদন্ত করে রিপোর্ট চেয়ে পাঠাবে এবং বিষয় টিকে মানবধিকার কমিশনারের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হবে।

No comments:

Post a Comment